জাগো হে পুরাতন প্রীতি

‘ফুল নেবে না সুবাস’, ১৯৯৩ সালে, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ‍্যালয়ে লেখা আমার একটি গল্পের নাম। অপ্রকাশিত গল্পটি আজ পড়লাম! ক‍্যাম্পাসে রুমান্টিক প্রেম আমার নীবব-অন্তর্মুখী জীবনে আসেনি, করিনি! কিন্তু বন্ধুদের তিরিং-বিরিং এর আদলে খারাপ লিখতাম না!
 
আমি লেখালেখি ছেড়েছি, জিওলজি ছেড়েছি। বিশ্ববিদ‍্যালয় শেষে লেখালেখি একেবারেই করা হয়নি! শুধু পড়েছি, প্রতিষ্ঠা আর খ‍্যাতির পিছনে ঘুরছি। আজ বুঝলাম – আত্নার সঙ্গে সম্পর্কিত কোন কিছুই জিৎ করে, জোর করে ত‍্যাগ করা ঠিক না ।
 
লেখালেখি ও বিজ্ঞান, এই দু’টি বিষয় আমাকে অনেক দিয়েছে। সহজে কঠিন সব বিষয় রপ্ত করার অধ‍্যাবসায়ের অভ‍্যাস পেয়েছি এ দুবিষয়ে লেগে থাকার কারণে। কিন্তু গত ২০ বছর, তা স্বীকার করতে চাইনি। এখন প্রায়শঃ মনে হয় মাল্টিমিডিয়ার পাশাপাশি যদি লেখালেখি ও জিওলজি নিয়ে থাকতাম মন্দ হতো না ।
 
তাই বাড়ী ফেরার চিন্তা করছি। ‘সাইন্স জার্নালিজম, পরিবেশ বিষয়ে আরো বেশী কাজ করতে পারলে ভালো হবে। এবার বাংলাদেশ থেকে ‘লালচে রঙচটা’ পুরাতন পান্ডুলিপিগুলো নিয়ে আসেছি । দেখি কিছু করা যায় কিনা! পুরাতন প্রীতি আবার জাগানো যায় কিনা ।
January 29th, 2017|